মাওলানা মুহাম্মাদ যাকারিয়া আব্দুল্লাহ ।। কোনো প্রাণীর মূর্তি নির্মাণ করা ইসলামী শরীয়তে কঠিন কবীরা গুনাহ ও হারাম । মূর্তি সংগ্রহ, মূর্তি সংরক্ষণ এবং মূর্তির বেচাকেনা ইত্যাদি সকল বিষয় কঠিনভাবে নিষিদ্ধ। মূর্তির পূজা তো বলাই বাহুল্য, নির্মাণেরও কিছু কিছু পর্যায় এমন রয়েছে যা কুফরী। কেউ কেউ মূর্তি ও ভাস্কর্যের মধ্যে বিধানগতবিস্তারিত

মুফতী মনসূরুল হক ।। আল্লাহ তা‘আলার নিকট মনোনীত ধর্ম ও একমাত্র শান্তিময় ধর্ম হলো ইসলাম ধর্ম, যাতে নেই কোনধরনের সঙ্কীর্ণতা ও লাগামহীন স্বাধীনতা এবং নেই এমন কোনো আদেশ যা পালন  করা  দুষ্কর এবং নেই এমন কোনো নিষেধ, যা বর্জন করা অসম্ভব। বরং তাতে রয়েছে সহজতা ও পূর্ণতা এবং ব্যাপকতা ওবিস্তারিত

স্বামী দয়ানন্দ সরস্বতী ।। প্রশ্ন: মূর্তিপূজা কোত্থেকে এলো? উত্তর: মূর্তিপূজা বৈদিক হিন্দুধর্মবহির্ভূত চর্চা। স্বার্থান্বেষী মহল এটি জৈনদের কাছ থেকে এনে সংযোজন করেছে। প্রশ্ন: জৈনরা মূর্তিপূজার ধারণা কিভাবে পেয়েছে? উত্তর: নিজেদের মূর্খতা থেকে। প্রশ্ন: জৈনরা বলে- শান্ত, ধ্যানমগ্ন, উপবিষ্ট মূর্তি দর্শন করা হলে নিজের আত্মার শুভ পরিণাম সেরূপই হয়ে থাকে। উত্তর:বিস্তারিত

মুহসিনুদ্দীন মাহমূদ ।। নিজেকে কোনো বাস্তব বা কল্পিত ঊর্ধতন সত্ত্বার মুখাপেক্ষী জেনে পূজা-উপাসনা করার উদ্দেশ্যে তাঁর অবয়ব, ভাস্কর্য বা মূর্তি তৈরি করা কোনো কোনো ধর্মের বৈশিষ্ট্য। বর্তমান বিশ্বে প্রচলিত প্রধান প্রধান ধর্মগুলোর মধ্যে হিন্দুধর্ম অন্যতম। যদিও বাস্তব অনুসন্ধানে নিয়োজিত হলে দেখা যায়, হিন্দুধর্মের অনুসারী বলে পরিচিত মানুষের মধ্যে একেবারে ভিন্নবিস্তারিত

মুহসিনুদ্দীন মাহমূদ ।। মহামহিম আল্লাহ্ যুগে যুগে দেশে দেশে মানবমণ্ডলীর জন্য তাঁর পথনির্দেশিকা প্রেরণ করেছেন; নবী-রাসূলগণের মাধ্যমে, কিতাব সহকারে। বনী ইসরাঈল জাতির কাছে পাঠিয়েছেন তাঁর দুইজন রাসূল; হযরত মূসাকে (তাঁর ওপর আল্লাহর ঝরুক সালাম) পাঠিয়েছেন ‘তওরাত’ সহ, হযরত ঈসাকে (তাঁর ওপর আল্লাহর ঝরুক সালাম) পাঠিয়েছেন ‘ইঞ্জিল’ সহ। বনী ইসরাঈল হযরতবিস্তারিত

কাশফিহা খন্দকার ।। খৎনা করা ইসলামে ফরজ বা বাধ্যতামূলক নয়। এটি একটি সুন্নাত। তাছাড়া আমরা জানি পবিত্রতা ঈমানের অঙ্গ! পবিত্রতা ছাড়া ইবাদত গ্রহণযোগ্য নয়। যেকোন ইবাদতের প্রথম শর্ত পবিত্রতা! আর এই পবিত্রতার পথে বাধা সৃষ্টি করে বাড়তি ঐ চামড়াটুকু! এই চামড়াটুকু থাকা অবস্থায় পবিত্র হওয়া অত্যন্ত কষ্টসাধ্য। কেননা এতে প্রস্রাববিস্তারিত

মুহসিনুদ্দীন মাহমূদ ।। বৌদ্ধধর্মের প্রবর্তন করেছেন সিদ্ধার্থ গৌতম; যিনি এখন গৌতম বুদ্ধ বা বুদ্ধ নামেই বেশি পরিচিত। খ্রিস্টপূর্ব ষষ্ঠ শতকে তাঁর শিক্ষা ও উপদেশকে কেন্দ্র করে এ ধর্মের উদ্ভব ঘটে। সিদ্ধার্থের জন্ম ৫৬৩ খ্রিস্টপূর্বাব্দে; নেপালের সীমান্তবর্তী রাজ্য কপিলাবস্তুতে। বুদ্ধ নিজেকে কখনো ঈশ্বর, অবতার বা উপাস্য রূপে উপস্থাপন করেননি। তিনি কোনোবিস্তারিত

।। তাঁর ওপর আল্লাহর ঝরুক সালাম ।। ডক্টর মুহম্মদ শহীদুল্লাহ ।। শেষ নবীর (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) পূর্বে যত নবী বা ধর্মপ্রবর্তক এসেছেন, তাঁরা তাঁদের স্বজাতির জন্য আবির্ভূত হয়েছিলেন। এমনকি মহাত্মা যীশু খ্রিস্ট পর্যন্ত বলেছেন, “I am not sent, but unto the lost sheep of the house of Israel.” (Mathew,বিস্তারিত

।। তাঁর ওপর আল্লাহর ঝরুক সালাম ।। হুমায়ূন আহমেদ ।। তখন মধ্যাহ্ন। আকাশে গনগনে সূর্য। পায়ের নিচের বালি তেতে আছে। ঘাসের তৈরি ভারী স্যান্ডেল ভেদ করে উত্তাপ পায়ে লাগছে। তাঁবুর ভেতর থেকে বের হওয়ার জন্যে সময়টা ভালো না। আউজ তাঁবু থেকে বের হয়েছে। তাকে অস্থির লাগছে। তার ডান হাতে চারটাবিস্তারিত