মূর্তি ও চিত্রপূজার বিরুদ্ধে সনাতন হিন্দুধর্ম

মুহসিনুদ্দীন মাহমূদ ।।

নিজেকে কোনো বাস্তব বা কল্পিত ঊর্ধতন সত্ত্বার মুখাপেক্ষী জেনে পূজা-উপাসনা করার উদ্দেশ্যে তাঁর অবয়ব, ভাস্কর্য বা মূর্তি তৈরি করা কোনো কোনো ধর্মের বৈশিষ্ট্য।

বর্তমান বিশ্বে প্রচলিত প্রধান প্রধান ধর্মগুলোর মধ্যে হিন্দুধর্ম অন্যতম। যদিও বাস্তব অনুসন্ধানে নিয়োজিত হলে দেখা যায়, হিন্দুধর্মের অনুসারী বলে পরিচিত মানুষের মধ্যে একেবারে ভিন্ন ভিন্ন বিশ্বাস, উপাস্য, উপাসনাপদ্ধতি ইত্যাদি বিদ্যমান। তখন মনে হয়, ভিন্ন ভিন্ন কতোগুলো ধর্মকে ভুল করে একটি ধর্ম বলে বর্ণনা করতে গিয়ে ‘হিন্দুধর্ম’ নামটি তৈরি হয়েছে।

এই বিষয়টি মাথায় নিয়েই বলতে হয়, বর্তমানে যদিও বিপুল সংখ্যক হিন্দু মূর্তির মাধ্যমে বহু দেবতার পূজা করে থাকেন; কিন্তু এটি তাদের প্রকৃত বা মূল ধর্মের বৈশিষ্ট্য নয়। মূল হিন্দুধর্ম আদৌ মূর্তি বা চিত্রপূজাকে সমর্থন করে না।

হিন্দুধর্মে মূর্তিপূজার অস্বীকৃতি

হিন্দুদেরকে মূর্তিপূজা করতে দেখা যায়। বলা হয়, পুরোহিতেরা মূর্তিতে দেবতার ‘আবাহন ও প্রাণপ্রতিষ্ঠা করার’ পর হিন্দুরা সেই মূর্তিকে পূজা করেন। যেমন, স্বামী বিবেকানন্দ মূর্তিপূজা সম্পর্কে হিন্দুধর্মের অবস্থান ব্যাখ্যা করেছেন এভাবে:

“পুতুল পূজা করে না হিন্দু/ কাঠ মাটি দিয়ে গড়া/ মৃণ্ময় মাঝে চিন্ময় হেরে/ হয়ে যাই আত্মহারা।” অর্থাৎ, মাটির মূর্তির ভিতরে সর্বশক্তিমান স্রষ্টার আগমন ঘটে, এমন বিশ্বাসের কারণেই শুধু হিন্দুরা মূর্তিপূজা করছেন।

কিন্তু এই কথাকে খণ্ডন করে ঠাকুর বালক ব্রহ্মচারী বলেছেন:

“প্রথমদিকে মূর্তি তৈরির পিছনে দেবদেবী, ভগবান, পূজা-পার্বণ ইত্যাদির কোনো নামগন্ধই ছিল না। সেগুলো সব পরে আরোপিত হয়েছে; ধর্মব্যবসায়ীদের স্বার্থসিদ্ধির জন্য, তাদেরই দ্বারা।”

বালক বলেন, “লোকেরা মূর্তি ভালবাসতো পুতুল হিসেবে। মূর্তি দিয়ে ঘর সাজাতো। স্বার্থান্বেষীরা এ সুযোগ ছাড়লো না। তারা এসব মূর্তিকে পূজা করতে আরম্ভ করলো। মূর্তি এবং বেদশ্লোকের অপব্যাখ্যা করে জনসাধারণকে বুঝাতে লাগলো- এগুলো হচ্ছে ভগবানের প্রতিরূপ, বেদজ্ঞ মন্ত্রদ্রষ্টা মুনি-ঋষিরা ধ্যান করে এ মূর্তিগুলো পেয়েছে, এদেরই শক্তিতে জগত চলছে। অতএব এসব মূর্তিকে বিভিন্ন উপচারে পূজা করলে, তাদের ধ্যান করলে ভগবান খুশি হবেন। যদি নিজেদের মঙ্গল চাও, তাহলে এখানে পূজা দাও।

এভাবে লোক আকৃষ্ট করে নিজেদের ব্যবসা চালাতে লাগলো।”

তাহলে জানা গেল, প্রকৃত হিন্দুধর্মে মূর্তিপূজার কোনো স্থান ছিল না। হিন্দুধর্ম অদৃশ্য ও এক ভগবানের উপাসনার শিক্ষা নিয়েই যাত্রা শুরু করেছিল। একটি স্বার্থান্বেষী মহল জনসমাজের মূর্তিপ্রীতি লক্ষ্য করে ‘মূর্তির ভিতরে ভগবানের অবস্থান’ তত্ত্ব প্রচারের মাধ্যমে প্রথম মূর্তিপূজার সূচনা ঘটায় এবং হিন্দুধর্মের মারাত্মক বিকৃতি সাধন করে।

বালক বলেন, “এভাবেই তৈরি হয়েছে বিভিন্ন দেবদেবী। মনের ভাবনা-চিন্তা, ধ্যানধারণাকে কেহ প্রকাশ করেছেন রচনায়, কেহ প্রকাশ করেছেন চিত্রে, কেহ মূর্তিতে।”

মূর্তিপূজা কারা কিভাবে ছড়িয়ে দিয়েছে?

মানুষ যত পার্থিব প্রয়োজন বোধ করে, স্বার্থান্বেষীরা তার প্রতিটির জন্য ভিন্ন ভিন্ন দেবদেবীর মূর্তিপূজা চালু করেছে। তারা মানুষকে বুঝিয়েছে, প্রতিটি প্রয়োজন পূরণের জন্য এক ভগবানেরই দেবদেবী নামে ভিন্ন ভিন্ন অংশ রয়েছে। তাই বিভিন্ন সময়ে ভিন্ন ভিন্ন দেবমূর্তি তৈরি করতে হবে। প্রতিটি মূর্তির ভিতরে পুরোহিতের সাহায্যে দেবতাকে আহ্বান করতে হবে, এরপর পূজা করতে হবে।

কারা কিভাবে মূর্তিপূজার বিস্তার ঘটিয়েছে, সে সম্পর্কে লিখতে গিয়ে স্বামী দয়ানন্দ সরস্বতী লিখেছেন, “প্রস্তর মূর্তি নির্মাণ করিয়া গুপ্ত কোনো পর্বতে-অরণ্যাদিতে রাখিত। পরে ইহারা চেলাদের মাধ্যমে প্রচার করিত যে, রাত্রিকালে মহাদেব, পার্বতী, রাধাকৃষ্ণ, সীতারাম, লক্ষ্মীনারায়ণ, ভৈরব এবং হনুমান প্রভৃতি তাহাকে স্বপ্নে বলিয়া দিয়াছেন, ‘আমি অমুক স্থানে আছি, আমাকে সে স্থান হইতে আনিয়া মন্দিরে স্থাপন করো এবং তুমি আমার পূজারী হইলে মনোবাঞ্ছিত ফল প্রদান করিব।’

জ্ঞানান্ধ ধন্যাঢ্যগণ এ সকল পোপলীলা সত্য বলিয়া মানিয়া লইতেন এবং জিজ্ঞাসা করিতেন, ‘এখন এই মূর্তি কোথায় আছে?’ তখন পোপ-মহারাজ বলিতেন, ‘অমুক পর্বতে বা অরণ্যে আছে; আমার সঙ্গে চল, দেখাইব।’ তখন জ্ঞানান্ধ সেই ধূর্তের সঙ্গে সে স্থানে যাইয়া মূর্তি দর্শন করিত এবং আশ্চর্য হইয়া তাহার পায়ে পড়িয়া বলিত, ‘আপনার এই দেবতার বড়ই কৃপা; এবার ইহাকে আপনি লইয়া চলুন, আমি মন্দির নির্মাণ করাইয়া দিব। মন্দিরে এই দেবতার স্থাপনা করিয়া আপনিই পূজা করিবেন। আমরাও মনোবাঞ্ছিত ফল লাভ করিব।’

একজনের এইরূপ লীলাখেলা রচনার পর দেখাদেখি অন্যান্য সকল ‘পোপ’ তাহাদের জীবিকার্থে ছলনা-কপটতা সহকারে মূর্তি স্থাপন করিতে লাগিল।”

[মূর্তিপূজা সমীক্ষা, সত্যার্থ প্রকাশ, স্বামী দয়ানন্দ সরস্বতী; পৃষ্ঠা ২৩৮]

এভাবেই অসংখ্য দেবমূর্তির ভিতরে ভগবানের আগমনের তত্ত্ব দিয়ে একেশ্বরবাদী মূল হিন্দুধর্মকে স্বার্থবাদীদের লোভলালসা চরিতার্থ করার যুপকাষ্ঠে বলি দেওয়া হয়েছে। চিন্তা করে দেখা হয়নি যে, ‘মৃণ্ময় মূর্তির’ ভিতরে যদি ‘চিন্ময় ভগবানেরই’ আবির্ভাব ঘটলো, তবে তাঁকে কেন গরু-ঘোড়া-হাঁস-পেঁচা-ইঁদুরের পিঠে করে আসতে হবে? তাঁকে কেন হাত-পা ধুইয়ে বিভিন্ন ভোগ দিতে হবে? ‘পান-তামুক’ খাওয়াতে হবে? চিন্ময় ভগবানের এসবে কী প্রয়োজন?

মূর্তিপূজার বিরুদ্ধে হিন্দুধর্মের নিষেধবাণী

হিন্দুদের শাক্ত, শৈব, বৈষ্ণব প্রভৃতি অংশ মূর্তিপূজায় জড়িত। কিন্তু আর্যসমাজ, ব্রাহ্মসমাজ ইত্যাদি অংশ মূর্তিপূজাকে পৌত্তলিকতা আখ্যা দিয়ে তা বর্জন করে থাকে।

হিন্দুদের প্রধান দুটি ধর্মগ্রন্থ বেদ এবং গীতায় মূর্তিপূজা করতে কোনো নির্দেশ দেওয়া হয়নি। বরং গ্রন্থদুটিতে মূর্তিপূজা থেকে মানুষকে নিষেধ করা হয়েছে।

যেমন যজুর্বেদে বলা হয়েছে, “ন তস্য প্রতিমা অস্তি যস্য নাম মহদ্যশঃ।” অর্থাৎ, এ পুরুষের প্রতিমা নেই। তার মহৎ যশ আছে।

[যজুর্বেদ, অধ্যায় ৩২, কণ্ডিকা ৩]

ভগবত গীতায় বলা হয়েছে, “কামৈস্তৈস্তৈহৃর্তজ্ঞানাঃ প্রপদ্যন্তেহন্যদেবতাঃ।” অর্থাৎ, ‘যে ত্বত্যন্তং রাজসাস্তামসাশ্চ কামাভিভূতাঃ ক্ষুদ্রব্দেবতাঃ সেবন্তে।’ (আধুনিক সংস্কৃত অনুবাদ, শ্রীধর স্বামীপাদ)। বাংলায়, ‘যারা অত্যন্ত রাজস বা তামস স্বভাবের লোক, তারাই ইতরাভিলাষের বশীভূত হয়ে ক্ষুদ্র দেবতাগণের সেবা করে।’ (অনুবাদ, ভক্তি সুধাকর)

[শ্রীমদ্ভগবদ্গীতা, অধ্যায় ৭, অনুচ্ছেদ ২০]

এ কারণেই সাধারণত শিক্ষিত হিন্দুমহল মূর্তিপূজা থেকে নিজেদেরকে দূরে রাখেন।

মূর্তিপূজারীদের প্রতি নিন্দা

আর্যসমাজের প্রতিষ্ঠাতা স্বামী দয়ানন্দ সরস্বতী মূর্তিপূজারিদের উদ্দেশে বলেন, “যখন তোমরা বেদ-নিষিদ্ধ মূর্তিপূজা প্রভৃতি কাজ কর, তখন তোমরা পাপী হবে না কেন?”

তিনি আরো বলেন, “জড়পূজা দিয়ে মানুষের জ্ঞান কখনও বৃদ্ধি হতে পারেনা, বরং মূর্তিপূজা দিয়ে যে জ্ঞান আছে, তাও নষ্ট হয়ে যায়।” তিনি বলেন, “পাথর-মূর্তির পূজা দিয়ে কেউ কি কখনও পরমেশ্বরকে ধ্যানে আনতে পারে? না না।”

তিনি বলেন, “মূর্তিপূজা উপলক্ষ্যে মানুষ কোটি কোটি টাকা মন্দিরে ব্যয় করে দরিদ্র হয়ে পড়ে।”

স্বামী সরস্বতী বলেন, “দুষ্টবুদ্ধি পূজারীদেরকে যে ধন দেওয়া হয়, তা তারা বেশ্যা, পরস্ত্রীগমন, মদপান, মাংসাহার এবং কলহবিবাদে ব্যয় করে। তাতে দাতার সুখের মূল নষ্ট হয়ে দুঃখ সৃষ্টি করে।”

[মূর্তিপূজা সমীক্ষা, সত্যার্থ প্রকাশ, স্বামী দয়ানন্দ সরস্বতী; পৃষ্ঠা ২৩৮-২৪৬]

মূর্তি এবং চিত্রপূজা হিন্দুধর্মের নয়

এখন যে হিন্দুরা ব্যাপকভাবে নানা দেবদেবীর মূর্তি ও চিত্রপূজায় লিপ্ত রয়েছেন, এটি মোটেও সূচনাকালীন হিন্দুধর্মের শিক্ষা নয়। আশা করি, উপরের আলোচনা বিষয়টিকে স্পষ্ট করে দিয়েছে।

৫টি মন্তব্য

  1. Jajhakallah, Barakallah; Alhamdulillah

    3
    1. Author

      ওয়া ইয়্যাকা!

  2. Thanks for completing the trilogy.

    3
    1. Author

      Same to you!

  3. এই রকম আরো লেখা চাই। ইনশাআল্লাহ আরো পাবো।

    2

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।